TET SSC Scam West Bengal

TET SSC Scam West Bengal: শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতি নিয়ে প্রতিদিন নিত্য নতুন চাঞ্চল্যকর ঘটনা সামনে আসছে।কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা আদালতের নির্দেশে শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতির তদন্ত করছে।এই দুর্নীতিকে কেন্দ্র করেই পার্থ ও অর্পিতার একাধিক ফ্ল্যাট থেকে কোটি কোটি নগদ টাকা, সোনার অলংকার, বিদেশী মুদ্রা পাওয়া গিয়েছে। প্রায় প্রতিদিন এক একটি নিয়োগ দুর্নীতির (TET SSC Scam West Bengal) নতুন পর্দা ফাঁস হচ্ছে। পার্থ চট্টোপাধ্যায় ও তার বান্ধবী অর্পিতা মুখোপাধ্যায় আপাতত ইডির হেফাজতে রয়েছে।

বেশ কয়েকদিন আগে থেকেই সোশ্যাল মিডিয়ায় পার্থ চট্টোপাধ্যায় এবং অর্পিতা মুখোপাধ্যায়ের সম্পত্তি সংক্রান্ত বিভিন্ন তথ্য আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে উঠে এসেছে। সোশ্যাল মিডিয়ায় এখন ভাইরাল অর্পিতার ফ্ল্যাট থেকে উদ্ধার হওয়া বান্ডিল বান্ডিল নোটের ছবি। সবার মুখে মুখে এখন শুধু একটাই প্রশ্ন এত টাকা এত সম্পত্তি পেলেন কোথা থেকে অর্পিতা?

এসবের মধ্যেই নেট মাধ্যমে আবার আরেকটি তালিকা ছড়িয়ে পরেছে এবং মুহূর্তে তা ভাইরাল হয়ে গেছে। সাদা খাতা জমা দিয়ে চাকরি পেয়েছেন এই খবরটি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে গিয়েছে।সোশ্যাল মিডিয়ায় ঝড়ের গতিতে ভাইরাল হওয়া এই খবরটি থেকে জানা যাচ্ছে, উত্তরবঙ্গের শাসক দলের বেশ কিছু নেতা নেত্রীর নাম এবং তাদের ঘনিষ্ঠ আত্মীয়দের নাম রয়েছে।

সমস্তটাই টাকার বিনিময়ে হয়েছে বলেই অভিযোগ উঠেছে। টাকা দিয়েই চাকরি কেনাবেচা হয়েছে বলেই একের পরে অভিযোগ উঠতে শুরু করেছে। সোশ্যাল মিডিয়ার সেই তালিকায় দেখা যাচ্ছে, জলপাইগুড়ি অঞ্চলের ১২ জন নেতার নাম। এখন প্রশ্ন উঠছে সবাই কী আসলেই যোগ্য? নাকি সবই আসলে টাকার খেলা আর ক্ষমতার অপব্যহারের ফল? এই প্রশ্ন তুলছেন অনেকেই।

সুদীপ মল্লিক বর্তমানে জলপাইগুড়ির শিক্ষা সেলের একজন নেতা। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ, ২০১৭ সালের টেট পরীক্ষায় তার স্ত্রী রুমা মল্লিক সাদা খাতা জমা দিয়েই চাকরি পেয়েছেন। সুদীপ মল্লিকের কারসাজিতেই নাকি যোগ্যতা না থাকলেও তার স্ত্রী চাকরি পেয়েছেন বলে অভিযোগ করা হয়েছে। ২০১৭ সালে ধুপগুড়ির প্রাথমিক স্কুলে শিক্ষিকা হিসেবে তিনি যোগদান করেন।

এই ঘটনার সত্যতা যাচাই করতে সংবাদমধ্যম পৌঁছে যায় উক্ত প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং প্রশ্ন করা হয় বিদ্যালয়ের আধিকারিকদের। কিন্তু সেখান থেকে জানানো হয় তারা কোন প্রশ্নের উত্তর দিতে নারাজ। অপরদিকে অভিযুক্ত রুমা দেবীর সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও যোগাযোগ করা যায়নি।

এই প্রসঙ্গে জলপাইগুড়ি অঞ্চলের শিক্ষা সেলের নেতা তথা রুমা দেবীর স্বামীর দাবি “যা রটেছে সবই ভুল এবং ভিত্তিহীন, আমার স্ত্রী TET পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছিলেন এবং তারপর ভাইবা দিয়েই চাকরি পেয়েছেন। মিথ্যা রটনা করে তৃণমূলকে বদনাম করার জন্যই এই সব ঘটনা সাজানো হয়েছে। সবই ষড়যন্ত্র।

এই বিষয়ে ডিওয়াইএফআই সম্পাদক বলেন তালিকায় দেখেছি সুদীপ মল্লিক এর নাম আছে। শাসকদলের নেতার স্ত্রী রুমা মল্লিক এবং তার ছেলেমেয়েরাও তার কারসাজিতে চাকরি পেয়েছে। সাদা খাতা দিয়ে লক্ষ লক্ষ টাকা দিয়ে কেনা বেচা হয়েছে। আসলে সবটাই টাকার খেলা।

এ বিষয়ে বিজেপি বিধায়ক বিষ্ণুপদ রায়ের মন্তব্য ‘সারা বাংলা জুড়ে ছড়িয়ে রয়েছে দুর্নীতি ও চাকরি চুরির ঘটনা। ১০ লাখ ১৫ লাখ ২০ লাখ টাকায় বিক্রি হয়েছে সরকারি চাকরি। শুধু পার্থ চট্টোপাধ্যায় নয় এর পিছনে আরো অনেক নেতা-নেত্রীরা জড়িয়ে রয়েছে’। অন্যদিকে ধূপগুড়ির তৃণমূল নেতা রাজেশ কুমার সিং মন্তব্য করেন ‘ইডি তদন্ত করছে তদন্তে যা বেরিয়ে আসবে তাই দল মেনে নেবে। অন্যায়ের সাথে কোন আপোষ হবে না এবং সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে’ (TET SSC Scam West Bengal) ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.