Primary TET 2014 Court case

Primary TET 2014 Court case: ইতিমধ্যেই বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের নির্দেশে ২৬৯ জন প্রাইমারী চাকরী থেকে বরখাস্ত হয়েছে। কিন্তু পশ্চিমবঙ্গ প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ (WBBPE) ২৭৩ জনের নামের তালিকা কোর্টে জমা করেছিলো। কোর্ট জানতে চেয়েছে যে কেন শুধুমাত্র ওই ২৭৩ জনকে অগ্রাধিকার (WB Primary Scam) দেওয়া হলো কেন? কেন শুধু তাদেরই নাম্বার বাড়ানো হলো? এই নিয়ে পশ্চিমবঙ্গ প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদকে (WBBPE) বিস্তারিত রিপোর্ট জমা করতে বলা হয়েছে কোর্টে। আজ তার শুনানি ছিল।

২৭৮৭ জন পরীক্ষার্থী যারা পর্ষদের কাছে নাম্বার বাড়ানোর জন্য আবেদন করেছিল তাঁদের উত্তরপত্র পুনর্মূল্যায়নের তথ্য এবং নাম সহ বিস্তারিত কোর্টে (WB Primary TET 2014 Court case) জমা করতে বলা হয়েছিলো। কিন্তু পর্ষদ আজ শুধুমাত্র নামের তালিকা জমা দিয়েছে, আবেদনপত্র সংরক্ষণ না করায় সেগুলো নেই বলে আদালতে জানিয়েছে, এমনটাই জানা গিয়েছে।

যে এক্সপার্ট কমিটি গঠন করা হয়েছিলো সেই এক্সপার্ট কমিটির (Expert committee) Report এ যে স্বাক্ষর আছে সেটা কবেকার সেটা জানতে বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায় ফরেনসিক ল্যাবরেটরিতে (forensic laboratory) পাঠাবেন বলেও জানিয়েছেন।প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের চেয়ারম্যান মানিক ভট্টাচার্যকে পদ থেকে অপসারণের নির্দেশ দিয়েছে আদালত (Primary TET 2014 Court case)।

২০১৪ সালে প্রাথমিক স্কুলে শিক্ষক নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হয়। সেই মতো টেটের পরীক্ষা হয় ২০১৫ সালের ১১ অক্টোবর। ফল প্রকাশ হয় ২০১৬-র সেপ্টেম্বরে। ওই বছরই প্রথম মেধাতালিকা প্রকাশ করে প্রাথমিক শিক্ষা সংসদ। পরের বছর অর্থাৎ, ২০১৭ সালের ৪ ডিসেম্বর দ্বিতীয় বা অতিরিক্ত মেধাতালিকা প্রকাশ করা হয়। এই নিয়োগে প্রায় ২৩ লক্ষ চাকরিপ্রার্থী পরীক্ষা দিয়েছিলেন। তার মধ্যে ৪২ হাজার প্রার্থীকে শিক্ষক হিসাবে নিয়োগপত্র দেওয়া হয়।

এই ৪২ হাজার শিক্ষকের মধ্যে অধিকাংশই নাকি বেলাইনে নিয়োগ পেয়েছে। সেই শিক্ষকদের সংখ্যা প্রায় সাড়ে ১৭ হাজার। ইতিমধ্যেই এই নিয়োগের CBI তদন্ত চলছে। আর তাই ২০১৪ সালের টেট পাশ করে শিক্ষক/শিক্ষিকা হিসাবে যারা চাকরি করছেন তাদের চাকরি সম্পর্কিত সব তথ্য জমা করবার জন্য জরুরী বিজ্ঞপ্তি জারী করলো পশ্চিমবঙ্গ প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ (Primary TET 2014 Court case) ।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে CBI তদন্তের জন্য এই সন তথ্যের প্রয়োজন। বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, টেট ২০১৪ (TET ২০১৪) নিয়োগে ২০১৪ থেকে ২০১৯ এর সেপ্টেম্বর পর্যন্ত যারা চাকরি পেয়েছে তাদের সবার তথ্য চেয়েছে সিবিআই (CBI)। তাঁর জন্য প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ জেলার সমস্ত DPSC-কে গুরুত্বপূর্ণ নির্দেশ দিল।

Leave a Reply

Your email address will not be published.