Post office scheme

Post office scheme: বর্তমান সময়ে বিনিয়োগের বিভিন্ন উপায় রয়েছে।তবে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে ঝুঁকিও থাকে।কারন অনেক সংস্থাই অসৎ কিংবা ভুঁয়ো হওয়ায় গ্রাহকরা সেই সব জায়গায় বিনিয়োগ করতে সাহস পান না। কিন্তু পোস্ট অফিসের বিশ্বাসযোগ্যতা নিয়ে কারোর কোনো সন্দেহ নেই।ভারতীয় ডাকঘর বহু বছর ধরে দেশের গ্রাহকদের সুষ্ঠ ও সফলভাবে পরিষেবা দিয়ে চলেছে।

ভারতীয় পোস্ট অফিস অনেক ধরনের সেভিংস স্কিম চালায়। পোস্ট অফিস স্কিমে বিনিয়োগ করে কোটি কোটি মানুষ ভালো রিটার্নও পাচ্ছেন। এই কারণেই বহু মানুষ পোস্ট অফিস স্কিমে অর্থ বিনিয়োগ করে। পোস্ট অফিসে অর্থ বিনিয়োগ ঝুঁকিমুক্ত বলে মনে করা হয়। সবাই নিরাপদ এবং ভাল রিটার্নযুক্ত (Post office scheme) স্কিমগুলিতে নিজেদের অর্থ বিনিয়োগ করতে চান।

একজন মধ্যবিত্ত ভারতীয় এমন স্কিম পছন্দ করে, যা নিরাপদ এবং নিশ্চিত রিটার্ন দেয়।এবার ভারতীয় ডাকঘরের তরফ থেকেই এক অসাধারণ বিনিয়োগ প্রকল্প চালু করা হয়েছে (Post Office Scheme)।সেখানে বিনিয়োগ করে পেয়ে যেতে পারেন ৩৫ লক্ষ টাকা অবধি।পোস্ট অফিসের নতুন এই স্কিমের লাভ শুনলে চমকে যাবেন। এই বিনিয়োগ যোজনায় আবেদন করার শর্তাবলী ও যথেষ্ট সহজ।

ভারতের ডাকবিভাগ (post office) দ্বারা পরিচালিত এই স্কিমটি হল ‘গ্রাম সুরক্ষা স্কিম(Gram Suraksha Scheme)।এই স্কিমে কম পরিমান টাকা জমা করেই ভালো লভ্যাংশ বিশিষ্ট রিটার্ন পেয়ে যাবেন। তাই বিভিন্ন রকম বেসরকারি বিনিয়োগ স্কিমের লোভে না পড়ে ভারতীয় ডাকঘরের এই বিশ্বস্ত স্কিমে সহজেই অন্তর্ভুক্ত হতে পারেন। কী এই স্কিম, প্রকল্পের শর্তাবলী ইত্যাদি সমস্ত বিষয় সম্পর্কে নীচে আলোচনা করা হলো।এই স্কিম সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নেওয়া যাক।

গ্রাম সুরক্ষা যোজনা কী?

পোস্ট অফিসের গ্রাম সুরক্ষা যোজনা হল গ্রামীণ ডাক জীবন বীমা প্রকল্পের অংশ।এই প্রকল্প পোস্ট অফিসের (Post office scheme) তরফ থেকে ১৯৯৫ সালে চালু করা হয়েছে। বর্তমানে এটি ডাকঘরের অন্যতম জনপ্রিয় বিনিয়োগ প্রকল্প। এই প্রকল্পে আপনাকে মাসে ১,৫০০ টাকা অর্থাৎ দিনে মাত্র ৫০ টাকা করে জমা করতে হবে। ৮০ বছর বয়সে উপনীত হলে আপনি ৩৫ লক্ষ টাকা অবধি পেতে পারেন।আর যদি বিমাকারীর মৃত্যু হয় তাহলে সেক্ষেত্রে তাঁর নমিনিকে দেওয়া হয়।

কারা এই বিনিয়োগ করতে পারবেন?

সকল ভারতীয় নাগরিক যাঁদের বয়স ১৯ থেকে ৫৫ বছরের মধ্যে তাঁরা এই বিমায় বিনিয়োগ করতে পারবেন। এই স্কিমে (Post office scheme) সর্বনিম্ন বিনিয়োগ ১০ হাজার টাকা।বিনিয়োগকারী ১০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত বিনিয়োগ করতে পারবেন এই স্কিমে।

গ্রাম সুরক্ষা যোজনায় বিনিয়োগের সুবিধা?

আপনি এর প্রিমিয়াম মাসিক, ত্রৈমাসিক অর্ধবার্ষিক এবং বার্ষিকভাবে পরিশোধ করতে পারেন।নাগরিকদের সুবিধার কথা মাথায় রেখে এই প্রকল্পে প্রিমিয়ামও তিনভাবে দেওয়া যেতে পারে। যথা:- প্রতি মাসে অথবা তিন মাস অন্তর কিংবা ৬ মাস বা এক বছর অন্তর মোট প্রিমিয়াম দেওয়া যাবে। তাই বার্ধক্যকালে ভালো পরিমান অর্থরাশি পেতে চাইলে আজই এই বিনিয়োগ প্রকল্পে (Post office scheme) নিজের নাম নথিভুক্ত করান। এছাড়াও প্রিমিয়াম কত বছর অবধি দিবেন সেটিও আপনি বেছে নিতে পারবেন। আপনি নিম্নলিখিত তিনটি বয়স পর্যন্ত প্রিমিয়াম দিতে পারবেন। যথা-
(১) ৫৫ বছর বয়স পর্যন্ত
(২) ৫৮ বছর বয়স পর্যন্ত
(৩) ৬০ বছর বয়স পর্যন্ত

এই স্কিমে চার বছর পর ঋণ পাওয়া যায়?

এই বিমায় ঋণের সুবিধা রয়েছে। সেক্ষেত্রে পলিসি করার চার বছর পরে সেই সুবিধা গ্রহণ করতে পারবেন বিমাকারী।

এই স্কিম ৩ বছর পর স্যারেন্ডার করা যাবে?

যদি আপনি প্রিমিয়াম দিতে না ইচ্ছুক হন তাহলে তিন বছর পরে স্কিমটি স্যারেন্ডার করতে পারেন। তবে সেক্ষেত্রে এটা দিয়ে কোনো লাভ হবে না।তবে যদি আপনি পাঁচ বছরের আগে প্রকল্প স্যারেন্ডার করেন তাহলে কোনো রকম বোনাস পাবেন না।

কীভাবে পাবেন ৩৫ লক্ষ টাকা?

গ্রাম সুরক্ষা যোজনায় যদি কোনও ব্যক্তি প্রতি মাসে এই স্কিমে ১,৫১৫ টাকা বিনিয়োগ করেন অর্থাৎ প্রতিদিনের হিসেবে মাত্র ৫০ টাকা, তাহলে তিনি ৩৫ লক্ষ টাকা পর্যন্ত রিটার্ন পেতে পারেন। যদি কেউ ১৯ বছর বয়সে গ্রাম সুরক্ষা স্কিমে যুক্ত হন তাহলে ৫৫ বছর পর্যন্ত আপনাকে ১,৫১৫ টাকা প্রিমিয়াম দিতে হবে।

যদি ৫৮ বছর বয়স পর্যন্ত এই স্কিমটি নেন তাহলে প্রতি মাসে ১,৪৬৩ টাকা এবং ৬০ বছর পর্যন্ত নিলে প্রতি মাসে ১,৪১১ টাকা দিতে হবে। যদি প্রিমিয়াম মিস করেন তাহলে সেটি ৩০ দিনের মধ্যে জমা দিতে পারেন। এই স্কিমে বিনিয়োগকারী ৫৫ বছরের বিনিয়োগে ৩১.৬০ লক্ষ টাকা, ৫৮ বছরের বিনিয়োগে ৩৩.৪০ লক্ষ টাকা এবং ৬০ বছরের বিনিয়োগে ৩৪.৬০ লক্ষ টাকা ম্যাচুরিটি পাবেন।গ্রাম সুরক্ষা যোজনার অধীনে ৮০ বছর বয়সে ব্যক্তিকে হস্তান্তর করা হয়।আর যদি বিনিয়োগকারী অর্থাৎ সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির মৃত্যু হয়, তাহলে ব্যক্তির বৈধ উত্তরাধিকারীকে দেওয়া হবে।

এই গ্রাম সুরক্ষা যোজনায় বিনিয়োগ করতে আগ্রহী হলে আপনার নিকটবর্তী পোস্ট অফিসে (Post office scheme) গিয়ে যোগাযোগ করুন। সেখান থেকে আপনাকে আবেদন করার জন্য কী কী ডকুমেন্টস লাগবে, কত করে প্রিমিয়াম দিতে চাইবেন ইত্যাদি সমস্ত বিষয় নিয়ে বিস্তারিত জানিয়ে দেওয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.