Oasis Scholarship

Oasis Scholarship 2022: আমাদের সকলের জীবনে শিক্ষার গুরুত্ব অপরিসীম। মানব সভ্যতার উন্নয়নের মুল চাবিকাঠি হল শিক্ষা। প্রত্যেকটি মানুষের শিক্ষার অধিকার রয়েছে। শিক্ষা মানুষের ব্যক্তিত্ব বিকাশে যেমন সাহায্য করে তেমনই মানুষকে তার অধিকার ও মৌলিক স্বাধীনতা সম্পর্কে সচেতন করে।শিক্ষা মানুষের একটি মৌলিক অধিকার। কিন্তু ভারতের অনেক দরিদ্র ছাত্রছাত্রী মেধাবী হয়েও তাদের শিক্ষা জীবন শেষ করতে পারে না।

কিন্তু সমাজ বাস্তবতায় অনেক ছাত্রছাত্রী পড়াশুনার ব্যয় মেটাতে না পেরে মাধ্যমিক পরীক্ষার আগেই পড়াশুনা থেকে ঝরে পড়ে। হ্যা আমাদের দেশে এখনও এমন অনেক মেধাবী ছাত্র ছাত্রী আছে যারা দরিদ্রতার কারনে তাদের পড়াশোনা চালিয়ে যেতে পারে না। এই সকল দরিদ্র ছাত্রদের কথা বিবেচনা করে পশ্চিমবঙ্গ সরকার নানা স্কলারশিপ চালু করেছে। মেধাবী ছাত্রছাত্রীদের জন্য রাজ্য সরকার,কেন্দ্র সরকার ও বেসরকারি সংস্থা বিভিন্ন স্কলারশিপ চালু করেছেন।

এই Ration Card থাকলে বিনামূল্যে 5 কেজি করে ডাল মিলবে, কবে থেকে শুরু হচ্ছে জানুন

দরিদ্র মেধাবী ছাত্র ছাত্রীদের কাছে স্কলারশিপ যেন স্বপ্নের নাম। এই স্কলারশিপ তাদের অপূর্ণ স্বপ্নকে পুরন করে।এই সকল দরিদ্র ছাত্রদের কথা বিবেচনা করেই পশ্চিমবঙ্গ সরকার ওয়েসিস স্কলারশিপ চালু করেছে। এই বৃত্তির আওতায় পশ্চিমবঙ্গের SC/ST/OBC শ্রেনীতে অধ্যয়নকারী দরিদ্র ছাত্রছাত্রী স্কলারশিপ লাভ করে থাকে।

ওয়েসিস স্কলারশিপ (Oasis Scholarship) কি?

পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন প্রত্যন্ত অঞ্চলগুলিতে যে সকল জনজাতি এবং সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ভুক্ত (SC, ST, OBC) ছাত্র-ছাত্রীরা রয়েছে, তারা যাতে উচ্চশিক্ষা লাভ করতে পারে এবং ভবিষ্যতের স্বনির্ভর হতে পারে তার জন্য পশ্চিমবঙ্গ সরকারের পক্ষ থেকে ওয়েসিস স্কলারশিপের অধীনে অনুদান প্রদান করা হয়ে থাকে। আর্থিকভাবে অনগ্রসর শ্রেণীর ছাত্র-ছাত্রীদের সাহায্য করার পাশাপাশি রাজ্যের ছাত্র-ছাত্রীদের শিক্ষাগত মানের উন্নতিসাধন করাও এই স্কলারশিপের অন্যতম মূল উদ্দেশ্য।

বড় সুখবর! পশ্চিমবঙ্গের মহিলাদের পুজোর উপহার দিচ্ছে মুখ্যমন্ত্রী ,জাগো প্রকল্পে ৫ হাজার টাকা দেওয়ার নির্দেশ

কিছুদিন আগেই পশ্চিমবঙ্গের মাধ্যমিক এবং উচ্চমাধ্যমিক ছাত্রছাত্রীদের ফলাফল প্রকাশিত হয়েছে। আর তারপর থেকেই শিক্ষার্থীরা অধীর আগ্রহে ওয়েসিস স্কলারশিপের অনুদানের জন্য অপেক্ষা করছিলেন। কবে থেকে আবেদন প্রক্রিয়া শুরু হবে সেই আশায় ছিলেন। কিন্তু ওয়েসিস স্কলারশিপের আবেদনের প্রক্রিয়া শুরু হওয়ার সাথে সাথেই পোর্টালে কিছু সমস্যা দেখা দেয়। এরফলে ছাত্রছাত্রীরা সমস্যার সন্মুখিন হয়।

ছাত্র-ছাত্রী থেকে শুরু করে অভিভাবকরা ওয়েসিস স্কলারশিপের অনুদানের জন্য আবেদন করা যাবে কিনা তা নিয়ে যথেষ্ট দুশ্চিন্তায় ছিলেন। কিন্তু বর্তমানে সেই সমস্ত সমস্যার সমাধান করে ওয়েসিস স্কলারশিপ ফের স্বমহিমায় ফিরেছে। তবে ওয়েসিস স্কলারশিপ আবেদনের ক্ষেত্রে বেশ কিছু নতুন নিয়ম জারি করা হয়েছে।

ওয়েসিস স্কলারশিপের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট https://basis.gov.in/, আর তার ঠিক পরই ওয়েসিস স্কলারশিপ (Oasis Scholarship) সংক্রান্ত দশটি নতুন নিয়ম সামনে এসেছে। যেগুলি না জানলে ফর্ম ফিলাপের ক্ষেত্রে ছাত্রছাত্রীদের নানা প্রকারের সমস্যার সম্মুখীন হতে হবে। তাই এই স্কলারশিপে আবেদন করার আগে ছাত্রছাত্রীদের এই নতুন নিয়মগুলি জেনে নেওয়া দরকার।তাই শিক্ষার্থীদের সুবিধার্থে ওয়েসিস স্কলারশিপের নতুন নিয়মগুলি নিয়ে আলোচনা করতে চলেছি। এই নতুন নিয়মগুলি জেনে নিন-

PM Health Scheme: কেন্দ্রের বড় ঘোষণা! এবার যে কোনো প্রাইভেট হাসপাতালে সরকারী সাহায্যে

ওয়েসিস স্কলারশিপ (Oasis Scholarship) সংক্রান্ত এই নতুন নিয়মগুলি হল:-

কর্তৃপক্ষের তরফে নতুন দশটি নিয়ম প্রকাশ করা হয়েছে, সেগুলি হল-

১)শিক্ষার্থীদের অবশ্যই তাদের নিজস্ব আধার নম্বর যথাস্থানে প্রদান করতে হবে। যদি এক্ষেত্রে কোনোরকম সমস্যা দেখা যায় তবে সেই স্থানে EID নম্বর প্রদান করতে হবে।

২)একজন ছাত্র অথবা ছাত্রীর পক্ষ থেকে কেবলমাত্র একটি আবেদনই গ্রহণযোগ্য। একের বেশি আবেদনের ক্ষেত্রে সমস্ত আবেদনগুলিই বাতিল করা হতে পারে।

৩)শিক্ষার্থীকে আবেদন করার ক্ষেত্রে অবশ্যই নির্দিষ্ট স্থানে তার খাদ্যসাথী কার্ডের নম্বর প্রদান করতে হবে।

৪) ওয়েসিস স্কলারশিপের অনুদানের জন্য আবেদনের প্রক্রিয়া শিক্ষার্থীকে অবশ্যই তার রেজিস্টার মোবাইল নম্বরটি প্রদান করতে হবে। অথবা এমন একটি মোবাইল নম্বর প্রদান করতে হবে, যেটি তার কাছে রয়েছে এবং নম্বরটি সব সময় উপলব্ধ থাকবে। এক্ষেত্রে আরও বলা হয়েছে, যতোদিন পর্যন্ত শিক্ষার্থী ওয়েসিস স্কলারশিপের টাকা পাবেন ততোদিন পর্যন্ত এই মোবাইল নম্বরটিকে বৈধ থাকতে হবে অথবা শিক্ষার্থীর কাছে যেনো এই মোবাইল নম্বরটি উপলব্ধ থাকে।

৫)একজন ছাত্র অথবা ছাত্রী আবেদনের ক্ষেত্রে কেবলমাত্র একটি আধার নম্বর সংযুক্ত অ্যাকাউন্টই প্রদান করতে পারবে। ওয়েসিস স্কলারশিপের অনুদানের টাকা সরাসরি শিক্ষার্থীদের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে ট্রান্সফার করা হবে। তবে এই ব্যাংক অ্যাকাউন্টটিতে অবশ্যই আধার নম্বর সংযোগ করা থাকতে হবে।

৬)অ্যাপ্লিকেশন ফর্মে অবশ্যই আপনার কাস্ট সার্টিফিকেটের নম্বর যথাস্থানে প্রদান করতে হবে।

৭)পরিবারের আয়ের শংসাপত্র এবং জন্মের শংসাপত্র এই দুটি নথি অ্যাপ্লিকেশন ফর্মের প্রিন্ট আউট সহকারে ব্লক অফিসে অথবা সাব ডিভিশন অফিসে অথবা কলকাতার DWO অফিসে ভেরিফিকেশনের জন্য জমা করতে হবে।

৮)রাজ্য সরকারের নির্দেশ অনুসারে ওবিসি প্রি ম্যাট্রিক এবং পোস্ট ম্যাট্রিক ওয়েসিস স্কলারশিপের অনুদান পাওয়ার ক্ষেত্রে একটি পরিবার থেকে কেবলমাত্র ছাত্র এই স্কলারশিপের জন্য আবেদন করতে পারবেন। যদিও ছাত্রীদের ক্ষেত্রে এই নিয়ম কোনোভাবেই প্রযোজ্য নয়।

৯) প্রি ম্যাট্রিক এবং পোস্ট ম্যাট্রিক স্কলারশিপের ফর্ম পূরণের সময় অবশ্যই সঠিক কোর্স এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নামটি নির্বাচন করুন। এক্ষেত্রে যেকোনো ছোট ভুলের জন্য আপনার আবেদনটি বাতিল বলে গণ্য করা হবে। কোনো ক্ষেত্রে যদি কোন শিক্ষার্থী মিথ্যে দাবি উপস্থাপন করেন তবে তার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

১০) শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি নোডাল টিচার/ সহকারী অধ্যাপক এবং BCW ইন্সপেক্টরদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে যাতে তারা সমস্ত আবেদনপত্রগুলি সঠিকভাবে চেক করেন এবং কোর্স,শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ সমস্ত তথ্য ঠিক থাকলে তবেই যেন অ্যাপ্রুভ করা হয়। কোনোরূপ ভুল আবেদন পত্র অনুমোদনের যোগ্য নয়।

এখন ওয়েসিস স্কলারশিপে আবেদন করতে হলে সকল ছাত্রছাত্রীদের এই দশটি নিয়ম মানতে হবে।এই সকল নিয়ম না মেনে চললে ছাত্রছাত্রীদের আবেদন গ্রহনযোগ্য হবে না।

By Probir Biswas

আমি প্রবীর বিশ্বাস Webscte.in এ সকল প্রকারের স্কলারশিপ সহ বিভিন্ন জানা-অজানা তথ্য, সাথে টেক নিউজ, বিনোদন, ব্যবসা-বানিজ্যের ওপরও বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ আপডেট দিয়ে থাকি, ধন্যবাদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.