Ration Card

Ration Card: ভারতকে ডিডিটাল করার লক্ষে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি একের পর এক পরিবর্তন করে চলেছেন। স্মার্ট করার তাগিদে সব কিছুই এখন স্মার্ট। আধার কার্ড থেকে রেশন কার্ড সবকিছুই এখন স্মার্ট হয়ে গিয়েছে। আধার, প্যান,ভোটার কার্ডের পর রেশন কার্ডকেও ডিজিটাল কার্ডের আওতায় এনেছে কেন্দ্রীয় সরকার। বর্তমানে রেশন কার্ডের যথেষ্ট গুরুত্ব রয়েছে।রেশন কার্ড প্রায় সবার কাছেই রয়েছে।

রেশন কার্ড শুধুই রেশন তুলতে কাজে লাগে না। সরকারি নথি হিসেবেও ব্যবহৃত হয় এই গুরুত্বপূর্ণ কার্ড। সরকারের তরফ থেকে নাগরিকদের রেশন কার্ড দেওয়া হয়। এই কারণেই সরকারি নথি হিসেবে রেশন কার্ড খুবই গুরুত্বপূর্ণ। যে কোনও জায়গায় ঠিকানার প্রমাণ হিসেবেও কাজে লাগে রেশন কার্ড। বর্তমানে রেশন কার্ডের ( Ration Card) সাহায্যে আমরা ফ্রিতে রেশন পাচ্ছি।

বড় সুখবর! পশ্চিমবঙ্গের মহিলাদের পুজোর উপহার দিচ্ছে মুখ্যমন্ত্রী ,জাগো প্রকল্পে ৫ হাজার টাকা দেওয়ার নির্দেশ

ভারতে প্রায় ১ কোটির কাছাকাছি মানুষ রেশন কার্ড ব্যবহার করেন। রেশন কার্ড যে কেবলমাত্র মানুষের পেট চালাতে সাহায্য করে তাই নয়, পরিচয়পত্র হিসেবেও এর গুরত্ব রয়েছে। বিভিন্ন সরকারি কাজ থেকে শুরু করে অন্য নানা জায়গায়, রেশন কার্ড এখনও ব্যবহৃত হয় গুরুত্বপূর্ণ নথি হিসেবে। দেশজোড়া Covid অতিমারির মাঝে রেশন কার্ড না থাকলে কার্যত না খেতে পেয়ে মারা যেতেন দেশের অনেক মানুষ।

করোনা ভাইরাস মহামারীর সময় থেকে রেশন দোকানে বিনামূল্যে গম এবং চাল দেওয়া শুরু হয়েছিল। করোনা পরিস্থিতি থেকে শুরু করে বর্তমানে দেশের প্রায় ৮০ কোটি মানুষ বিনামূল্যে রেশন পাচ্ছেন। কোভিডের সময়েই রাজ্য ও কেন্দ্রের সরকারের তরফে বাসিন্দাদের বিনামূল্যে খাদ্যশস্য পৌঁছনোর জন্য একাধিক পদক্ষেপ নিয়েছে দুই সরকার।

PM Health Scheme: কেন্দ্রের বড় ঘোষণা! এবার যে কোনো প্রাইভেট হাসপাতালে সরকারী সাহায্যে

এবার Ration Card নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকার নয়া নিয়ম নিয়ে এল।দেশের সমস্ত রাজ্য এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলির জন্য Ration Card নিয়ে অর্থনৈতিক বিষয়ক মন্ত্রিসভা কমিটিতে এক গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর নেতৃত্বাধীন এই অর্থনৈতিক বিষয়ক মন্ত্রিসভা কমিটি CCEA সমস্ত রাজ্য এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলিতে নির্দিষ্ট পরিমাণে ডাল সরবরাহের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

সমর্থন মূল্য স্কিম এবং মূল্য নিয়ন্ত্রণ তহবিল (Ration Card Distribution) থেকে রাজ্য এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলিকে এই ডাল সরবরাহ করবে কেন্দ্র। ৩১ আগস্ট অর্থনৈতিক বিষয়ক মন্ত্রিসভা কমিটি তুর, অরদ এবং মুসুর ডাল সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা ২৫ শতাংশ থেকে বৃদ্ধি করে ৪০ শতাংশ করেছে। কেন্দ্রীয় সরকারের পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে এই সিদ্ধান্তের ফলে দেশ জুড়ে কৃষকেরা ডাল উৎপাদনে আরো উৎসাহিত হবেন।

WB Ration Big Update : অত্যন্ত খারাপ খবর! বন্ধ হল বিনামূল্যে রেশন, এখন চাল,ডাল ও গম পাবে কীভাবে?

এর পাশাপাশি তারা ডাল চাষের মাধ্যমে যে বিনিয়োগ করবেন, তারপরে উৎপাদিত পণ্যের লাভজনক মূল্য পাবেন। বর্তমানে দেশে ডাল উৎপাদন বৃদ্ধি পেয়েছে। গত ৩ বছরে দেশজুড়ে কৃষকেরা যথেষ্ট বেশি পরিমাণে ডাল উৎপাদন করেছেন।এই মুহূর্তে দেশে কেন্দ্রীয় সরকারের ভাড়ারে ডাল মজুত রয়েছে ৩০.৫৫ লক্ষ মেট্রিক টন।

দেশ জুড়ে যে খাদ্যশস্য (Ration Card) উৎপাদন হয়, কৃষকদের কাছ থেকে তার একটা অংশ কেন্দ্র এবং রাজ্য সরকার সংগ্রহ করে। এই সংগৃহীত খাদ্যশস্য Public Distribution System-এর মাধ্যমে বিভিন্ন প্রকল্পে ব্যবহার করা হয়ে থাকে। এর ফলে একদিকে যেমন স্বাভাবিক নিয়মেই কেন্দ্র এবং রাজ্য সরকার কৃষকদের কাছ থেকে খাদ্যশস্য নিয়ে মানুষের মধ্যে বিতরণ করেন।এরফলে কৃষকেরাও লাভজনক মূল্য পান।

বহু প্রতীক্ষিত মামলার রায়দান হল! মানিক ভট্টাচার্যের আবেদন ও ২৭৩ জনের বাতিল চাকরি ফেরানোর আর্জি খারিজ

প্রতিটি রাজ্য এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলিকে ১৫ লক্ষ মেট্রিক টন ডাল সরবরাহ করা হবে বলে কেন্দ্রের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে।যতদিন পর্যন্ত এই ১৫ লক্ষ মেট্রিক টনের লক্ষ্যমাত্রা পূরণ না হবে ততদিন পর্যন্ত সংশ্লিষ্ট রাজ্য এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলকে ডাল দেওয়া হবে।কেন্দ্র First Come First Serve ভিত্তিতে রাজ্যের ইস্যু মূল্যের থেকে প্রতি কেজি ৮ টাকা ছাড় দিয়ে এই ১৫ লক্ষ মেট্রিক টন ডাল সরবরাহ করবে।

কেন্দ্রের সরবরাহ করা এই ডাল সমস্ত রাজ্য এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলি পাবলিক ডিস্ট্রিবিউশন সিস্টেম, Mid Day Meal এবং শিশু বিকাশ কর্মসূচির মত প্রকল্পে ব্যবহার করতে পারবে।কেন্দ্রের পক্ষ থেকে ১২ মাস সময় ধরে এই ১৫ লক্ষ মেট্রিক টন ডাল লক্ষ্যমাত্রা ছোঁয়া না পর্যন্ত তা সরবরাহ করা হবে। কেন্দ্রীয় সরকার এর জন্য ১২০০ কোটি টাকা বরাদ্দ করেছে।

এই ডাল এককালীন বিতরণ ব্যবস্থার মাধ্যমে দেওয়া হবে।কেন্দ্রিয় সরকারের এই সিদ্ধান্তের ফলে দেশ জুড়ে কৃষকেরা ডাল উৎপাদনে আরো উৎসাহিত হবেন।কৃষকরা ডাল চাষের মাধ্যমে বিনিয়োগ করে, উৎপাদিত পণ্যের লাভজনক মূল্য পাবেন।এরফলে দেশের কৃষকরা উপকৃত হবেন।

By Probir Biswas

আমি প্রবীর বিশ্বাস Webscte.in এ সকল প্রকারের স্কলারশিপ সহ বিভিন্ন জানা-অজানা তথ্য, সাথে টেক নিউজ, বিনোদন, ব্যবসা-বানিজ্যের ওপরও বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ আপডেট দিয়ে থাকি, ধন্যবাদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.