Atal Pension Yojana – স্কিমে ৪১ টাকা রাখলে, প্রতিমাসে ১০০০ টাকা করে পাবেন, কিভাবে আবেদন করবেন জেনে নিন।

Atal Pension Yojana কিভাবে আবেদন করবেন জেনে নিন।

Atal Pension Yojana – কোনও মানুষই সারা জীবন কর্মক্ষম থাকে না। তাই আগে থেকেই ভবিষ্যতের জন্য অর্থ সঞ্চয় করে রাখাটা খুব জরুরী। যাতে অবসর নেওয়ার পরেও আরাম করে বার্ধক্য উপভোগ করতে পারে। নিজের ও পরিবারের ভবিষ্যত সুনিশ্চিত করতে সঞ্চয় অত্যন্ত প্রয়োজনীয়।

কিন্তু বর্তমান দুর্মূল্যের বাজারে দিন আনা দিন খাওয়া মানুষদের পক্ষে সংসারের দায়-দায়িত্ব সামলে ভবিষ্যতের জন্য অর্থ সঞ্চয় করে রাখাটা খুব কষ্টকর হয়ে পড়ে। এসবের মাঝে অনেকের ক্ষেত্রে ভবিষ্যতের জন্য সঞ্চয় করা সম্ভব হয়ে ওঠে না।

Advertisement

তবে চিন্তার কোন কারন নেই। কারন এই সব দিন আনা দিন খাওয়া মানুষের কথা চিন্তা করে তাদের ভবিষ্যত সুরক্ষিত করতে আমাদের দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী অটল পেনশন যোজনা অর্থাৎ Atal Pension Yojana বলে একটি নতুন প্রকল্প চালু করেছেন।

অটল পেনশন যোজনা কি?
কেন্দ্রের মোদী সরকারের একটি যোজনা হল Atal Pension Yojana বা অটল পেনশন যোজনা। প্রধানমন্ত্রী ২০১৫ সালের ৯ মে এই প্রকল্প শুরু করেছিলেন। অসংগঠিত ক্ষেত্রের কর্মীদের কথা মাথায় রেখেই এই পেনশন প্রকল্প চালু করা হয়েছিল মোদী সরকার। ১৮ থেকে ৪০ বছরের যে কোনও নাগরিক Atal Pension Yojana আওতায় নাম নথিভুক্ত করতে পারেন। এই প্রকল্পের আওতায় ৬০ বছরের পর থেকে মাসে মাসে পেনশন পাওয়া যাবে।

Advertisement

Atal Pension Yojana প্রকল্পের জন্য কারা উপযুক্ত?
১) ১৮ থেকে ৪০ বছর বয়সের সকল ভারতীয় নাগরিক এই যোজনায় আবেদন করতে পারবেন।
২)আবেদনকারীকে অবশ্যই একজন খেটে খাওয়া মানুষ হতে হবে।
৩)আবেদনকারীর নিজের আধার কার্ড থাকতে হবে।

বাতিল একাধিক রেশন কার্ড! এই তালিকায় আপনার নাম নেই তো?

৪) আবেদনকারীর নিজের নামে পোস্ট অফিসে বা ব্যাঙ্কে অ্যাকাউন্ট থাকতে হবে।
৫) ভারত সরকারের অধীনে ট্যাক্স দিয়ে থাকলে তারা এই প্রকল্পের সুবিধা পাবেন না্ল
৬) পরিবারের বার্ষিক আয় অবশ্যই ২ লক্ষ টাকার নীচে হতে হবে।
অটল পেনশন প্রকল্পের সুবিধা?

১) আবেদনকারী যদি মারা যান, তাহলে তার মৃত্যুর পর তার স্ত্রীকেও প্রতি মাসে ওই সম পরিমাণ টাকা পেনশন হিসেবে দেওয়া হবে।
২) আবার আবেদনকারী এবং আবেদনকারীর স্ত্রী দুজনেই যদি মারা যান তাহলে তাদের সন্তানদের ওই স্কিমে জমানো সমস্ত টাকা ফেরত দিয়ে দেওয়া হবে।

অটল পেনশন প্রকল্পের কোন খাতে কত কিস্তি দিলে কি সুবিধা পাবেন?
১) ১৮ বছর থেকে আপনি যদি এই প্রকল্পে প্রতি মাসে ৪১ টাকা করে আপনার অ্যাকাউন্টে জমা রাখেন, তাহলে ৬০ বছর বয়স হওয়া মাত্রই আপনাকে কেন্দ্রীয় সরকারের তরফ থেকে প্রতি মাসে ১০০০ টাকা করে পেনশন দেওয়া হবে।

২) ১৮ বছর বয়স থেকে প্রতি মাসে আপনার অ্যাকাউন্টে ২১০ টাকা করে জমা রাখেন, তাহলে আপনার ৬০ বছর বয়স হওয়া মাত্রই কেন্দ্রীয় সরকারের তরফ থেকে আপনাকে প্রতি মাসে ৫০০০ টাকা করে পেনশন দেওয়া হবে।
এই প্রকল্পে আবেদন করবেন কিভাবে?

১) প্রথমে আপনার নিকটবর্তী পোস্ট অফিস বা ব্যাঙ্কে একটি নিজের নামে অ্যাকাউন্ট খুলতে হবে।
২) এরপর যেখানে আপনি অ্যাকাউন্ট সেই ব্যাঙ্ক বা পোস্ট অফিস গিয়ে এই প্রকল্পের একটি ফর্ম তুলে সেখানে নিজের যাবতীয় তথ্য লিখে ফর্মটিকে ফিলাপ করে তার সঙ্গে নিজের যাবতীয় প্রয়োজনীয় ডকুমেন্টস গুলির এক কপি করে জেরক্স যুক্ত করে ওই ব্যাঙ্ক বা পোস্ট অফিসেই জমা করে আসতে হবে।

আবেদনপত্রের সঙ্গে কি কি ডকুমেন্টস জমা করতে হবে?
১) আধার কার্ডের জেরক্স।
২) ভোটার কার্ডের জেরক্স।
৩) ইনকাম সার্টিফিকেটের জেরক্স।
৫) ব্যাঙ্কের পাস বইয়ের প্রথম পাতার জেরক্স।

৪) স্থায়ী বাসিন্দার সার্টিফিকেটের জেরক্স।
৬) আবেদনকারীর নিজের এক দু কপি পাসপোর্ট সাইজের ফটো।
এই সম্পর্কিত অন্যান্য খবরের আপডেট সবার আগে পেতে হলে এই ওয়েবপোর্টালটি ফলো করতে ভুলবেন না।
Written by Sunita Mallick.

নভেম্বর মাসে এই ৬ টি প্রকল্প এর টাকা পাবেন। আপনি পাবেন কী?

Sunita Mallick

আমি সুনিতা মল্লিক Webscte.in এ সকল প্রকারের চাকরি ও শিক্ষার খুঁটিনাটি খবর সহ এই সাইটে সরকারি প্রকল্প, গুরুত্বপূর্ণ আপডেট দিয়ে থাকি, ধন্যবাদ।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *